বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টে শিষ্টাচারের অভাব রয়েছে: হানিফ

বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টে শিষ্টাচারের অভাব রয়েছে: হানিফ

বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের নেতারা প্রধানমন্ত্রীর চায়ের নিমন্ত্রণ রক্ষা না করে শিষ্টাচার বহির্ভূত কাজ করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল-আলম হানিফ।

রবিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ‘সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের স্মরণ সভায়’ তিনি এসব কথা বলেন। স্বপ্ন ফাউন্ডেশন নামের একটি সংগঠন এই স্মরণ সভার আয়োজন করে।

হানিফ বলেন, বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের মধ্যে শিষ্টাচারের অভাব রয়েছে। তারা নেতিবাচক রাজনীতি থেকে বের হয়ে আসতে পারেনি।

বিএনপি ভুল পথে হাঁটছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ভুল রাজনীতি ও ভুল সিদ্ধান্তের পথে হাঁটছে বিএনপি। ভুল পথে হাটলে তাদের পরিস্থিতি মুসলিম লীগের মত হবে। দলটির নেতারা এখন অযৌক্তিক কথা বলে কর্মীদের শান্তনা দেয়ার চেষ্টা করে।

তিনি বলেন,  বিএনপি ক্ষমতায় থেকে দেশের মানুষের জন্যে কিছুই করেনি। তারা দেশকে ধ্বংসস্তুপে পরিণত করেছিলো। তারা নেতিবাচক রাজনীতি করে। নেতিবাচক রাজনীতির কারণে আজ বিএনপি কোথায়।

সন্ত্রাসীদের জন্য বিএনপির কান্না হয় মন্তব্য করে মাহবুব উল-আলম হানিফ বলেন,  যারা দুর্নীতিবাজ নেতাদের বাঁচাতে দেশের নিরীহ মানুষের ওপর বোমা মেরে আহত-নিহত করেছে তাদের জন্য বিএনপি কান্না হয়। আহত- নিহতদের জন্যে আপনাদের কান্না হয় না। আপনাদের মানবতা তখন কোথায় থাকে?

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের আরেক যুগ্ম- সাধারণ ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফকে স্মরণ করে বলেন,  তিনি একজন সৎ, বিবেকবান, দেশপ্রেমিক ও সজ্জন ব্যক্তি ছিলেন। তিনি জনগণের কথা ভাবতেন।  সৈয়দ আশরাফ স্বল্প ভাষী ছিলেন।  তিনি কখনও কঠিন প্রশ্নের উত্তর ক্ষুব্ধভাবে দেননি।

দীপু মনি বলেন,  তার ( সৈয়দ আশরাফ) গুণগুলো আমরা চর্চা করার চেষ্টা করি।  তাহলে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হবে।  আমাদের জনগণের কথা ভেবে ইতিবাচক রাজনীতি করতে হবে। যেকোনো ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকতে হবে।

আয়োজক সংগঠনের চেয়ারম্যান মো. রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. নুরুল আমিন রুহুল, দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি আবু ইউসুফ ফকির প্রমুখ।

0
0

এই বিভাগের আরও কিছু খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *